শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০৫:৩৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম ::
অনিয়মের আঁতুড়ঘর সিবিআইইউ-০২ : বাস কাউন্টার নাকি বিশ্ববিদ্যালয়! নকলায় কোরবানির জন্য প্রস্তুত ১৭ হাজার পশু : চাহিদার তুলনায় সাড়ে ৭ হাজার বেশি মাগুরা শ্রীপুরে দ্বন্দ্বের বলি হলো তিন শতাধিক গাছ বাঙালির মুক্তির সনদ ঐতিহাসিক ৬ দফা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ওয়াকার-উজ-জামান সেনাপ্রধান হওয়ায় শেরপুরে আনন্দ র‍্যালি নবনিযুক্ত সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামানকে শেরপুর জেলা উন্নয়ন সংগ্রাম পরিষদের অভিনন্দন নতুন সেনাপ্রধান শেরপুরের সন্তান ওয়াকার-উজ-জামান কারারক্ষী আল মামুনের ফাঁদে সর্বস্বান্ত ছয় জেলার ব্যবসায়ীরা অভাবনীয় উদ্ভাবন “পঞ্চগৃহী” ধান, একবার রোপনে পাঁচবার ফলন সরকারি মাল দরিয়ায় ঢাল!

বিলুপ্তির পথে শেরপুর আদিবাসীদের হাতে তৈরি ঐতিহ্যবাহী পোশাক

মুরাদ শাহ জাবাল, ঝিনাইগাতী (শেরপুর) / ৮৩ বার
আপডেট সময় :: রবিবার, ২১ জানুয়ারী, ২০২৪, ৫:৪৭ অপরাহ্ন
বিলুপ্তির পথে শেরপুর আদিবাসীদের হাতে তৈরি ঐতিহ্যবাহী পোশাক

শেরপুরে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী (আদিবাসী) সম্প্রদায়ের লোকদের নিজ হাতে তৈরি ঐতিহ্যবাহী বাহারি রঙ্গের পোশাকগুলো আজ প্রায় বিলুপ্তির পথে। সুতার মূল্য বৃদ্ধি, অভিজ্ঞ কারিগরের অভাব ও অর্থনৈতিক দৈনতার কারণে আদিবাসীদের হাতে তৈরি বাহারি রঙ্গের পোশাকগুলো হারিয়ে যাওয়ার মূল কারণ বলে জানা গেছে। এসব পোশাকগুলো এখন আর আগের মতো চোখে পড়েনা।

জানা যায়, গারো পাহাড়ের পাদদেশে ভারতের মেঘালয় রাজ্যের সীমান্ত ঘেষে অবস্থিত শেরপুর জেলা। এ জেলার সীমান্তের তিনটি উপজেলার প্রায় ৪০ কিলোমিটার পাহাড়ি এলাকা জুড়ে রয়েছে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী সম্প্রদায়ের লোকজনের বসবাস।

আদিবাসী সংগঠন ট্রাইবাল ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন সুত্রে জানা গেছে, নালিতাবাড়ী, ঝিনাইগাতী ও শ্রীবরদী উপজেলায় ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর গারো, হাজং, কোচ, বানাই, বর্মনসহ বিভিন্ন জাতিগোত্রের প্রায় ৪০ হাজার আদিবাসী সম্প্রদায়ের লোকদের বসবাস।
রাংটিয়া আদিবাসী নেতা যুগল কিশোর কোচ বাঁকাকুরা গ্রামের ধীমানচন্দ্র কোচ জানায়, একসময় এদের ছিল জমিজমা, গোয়াল ভরা গরুসহ ফসলাদিতে ভরপুর। কিন্তু কালের আবর্তে সবকিছু হারিয়ে আদিবাসী সম্প্রদায়ের লোকজন এখন ভূমিহীনে পরিণত হয়েছে।

তারা বলেন, অতীতে আদিবাসী সম্প্রদায়ের লোকেরা নিজের হাতে তৈরি বাহারি রংয়ের ঐতিহ্যবাহী পোশাক তৈরি করে ব্যবহার করতো। সচরাচর প্রায় সকল আদিবাসী নারীদের পরনে দেখা যেতো তাদের হাতে তৈরি বাহারি রঙ্গের পোশাক। কোচ সম্প্রদায়ের নিজ হাতে তৈরি বাহারি রঙ্গের পোশাকের মধ্যে রয়েছে লেফেন, বাশেক, উর্না।

গারো সম্প্রদায়ের নিজ হাতে তৈরি পোশাকের মধ্যে রয়েছে দকমান্দা, দকশারী, উর্না। তবে হাজং ও বানাই সম্প্রদায়ের লোকজন কোচ সম্প্রদায়ের পোশাকই নিজ হাতে তৈরি করে পরিধান করতো। কিন্তু এখন আর আদিবাসী নারীদের পরনে আগের মতো বাহারি রঙ্গের পোশাক চোখে পড়ে না।

তথ্যানুসন্ধ্যানে জানা গেছে, আদিবাসীদের অর্থনৈতিক দৈন্যতা, অভিজ্ঞ কারিগরের অভাব ও সুতার মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে আদিবাসী সম্প্রদায়ের লোকদের নিজ হাতে তৈরি পোশাকগুলো দিনে দিনে প্রায় বিলুপ্তির পথে।

উপজেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্ঠান ঐক্য পরিষদের সভানেত্রী রবেতা ম্রং বলেন, আদিবাসীদের অর্থনৈতিক সংকট, সুতার মূল্য বৃদ্ধি, সরঞ্জামাদির অভাবসহ বস্ত্র তৈরিতে পারদর্শী কারিগরের অভাবে আদিবাসী সম্প্রদায়ের লোকজন আগের মত আর নিজ হাতে পোশাক তৈরি করতে পারছে না।

ঝিনাইগাতী উপজেলা ট্রাইবাল ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান নাবেশ খকশী বলেন, অতীতে সবাই কাপড় তৈরিতে অভ্যস্ত ছিল। তারা মারা যাওয়ার পর নতুন প্রজন্মের লোকজন এসব বাহারি রঙ্গের পোশাক তৈরি করতে না পারার কারণে দিনে দিনে আদিবাসী সম্প্রদায়ের ঐতিহ্যবাহী হাতে তৈরি বাহারি রঙ্গের পোশাকগুলো আজ প্রায় বিলুপ্তির পথে।

শ্রীবরদী উপজেলা ট্রাইবাল ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান প্রাঞ্জল এম সাংমা বলেন, সকল প্রতিকূলতার মাঝেও ১০% আদিবাসী সম্প্রদায়ের লোকেরা এখনো তা ধরে রেখেছে। আদিবাসী সম্প্রদায়ের লোকদের বিয়ে-শাদীতে এখনো চোখে পড়ে এসব বাহারি রঙ্গের পোশাক।

রাংটিয়া গ্রামের আদিবাসী নেতা জাগেন্দ্র কোচ বলেন, সরকারিভাবে অর্থনৈতিক যোগান পাওয়া গেলে আবারো আদিবাসী সম্প্রদায়ের লোকেরা নিজ হাতে বাহারি রঙের পোশাক তৈরিতে আগ্রহ বাড়বে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com
error: Content is protected !!
error: Content is protected !!